মঙ্গলবার, জুলাই ০৫, ২০২২ | ২০ আষাঢ় ১৪২৯

ছিলেন মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে! মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যেই ৭০০ কোটি টাকার ব্র্যান্ড গড়েছেন ইনি.


  • Logo
  • রবিবার ফেব্রুয়ারী ২৭, ২০২২
ছিলেন মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে! মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যেই ৭০০ কোটি টাকার ব্র্যান্ড গড়েছেন ইনি.
535 views

নতুন আশা:বর্তমান সময়ে নতুন প্রজন্মের কাছে “Boat” এমন একটি কোম্পানি যা এককথায় সকলের খুব পছন্দের। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে তাদের তৈরি করা হেডফোন এবং ইয়ারফোন এখন প্রায় প্রত্যেকেই ব্যবহার করেছেন। যার ফলে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ওই কোম্পানি জায়গা করে নিয়েছে যুবসমাজের কাছে।

তবে, এখন শুধু হেডফোন বা ইয়ারফোনই নয়, বরং চাহিদার সাথে সাথে নিত্যনতুন পছন্দের গ্যাজেটও বানাচ্ছে এই কোম্পানি। তবে, এই ব্র্যান্ডের সফলতার পেছনে যিনি রয়েছেন বর্তমান প্রতিবেদনে আজ আমরা সেই ব্যক্তিটির প্রসঙ্গই পাঠকদের সামনে উপস্থাপিত করব।সম্প্রতি টেলিভিশনে “Shark Tank India” নামে একটি জনপ্রিয় শো শুরু হয়েছিল যেখানে ভারতের ব্যবসায়িক উদ্যোক্তাদের সাহস, সঠিক পথ এবং অর্থনৈতিক বিনিয়োগ করে পথপ্রদর্শকের ভূমিকা পালন করছিলেন দেশের সফল ব্যবসায়ীরা। তাঁদের মধ্যেই অন্যতম একজন ছিলেন “Boat” কোম্পানির কর্ণধার আমান গুপ্তা। ওই শো’তে আমানের উপস্থিতি দর্শকদেরও খুব পছন্দের হয়।

আমান জীবনের এক্কেবারে প্রথম দিকে আর পাঁচজন সাধারণ মানুষদের মতই পরিবারের চাহিদা মেটাতে চাকরি খুঁজতেন। আজ আমান কয়েক কোটি টাকার কোম্পানির মালিক হলেও একটা সময়ে ছিল যখন তিনি পড়াশোনা শেষ করার পরেই চাকরিও করেছেন। মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান হওয়ায় তিনি সেই পথেই হেঁটেছিলেন। এমনকি, তিনি তাঁর বাবার নির্দেশে Chartered Accountant-ও হয়েছিলেন। যদিও, প্রথম থেকেই তাঁর মধ্যে ব্যবসা করার ইচ্ছে প্রবলভাবে ছিল।তবে, “Boat” কোম্পানি শুরু করার আগে আমান আরও দুই থেকে তিনটি ব্যবসায়িক স্টার্টআপে ভাগ্য ফেরানোর চেষ্টা করলেও তাতে তিনি সফল হননি। তবে, “Boat”-এর ক্ষেত্রে মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যেই তিনি তাঁর কোম্পানিকে সেরা ১০টি কোম্পানির মধ্যে দাঁড় করাতে সক্ষম হয়েছেন।

বিভিন্ন রিপোর্ট অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, বর্তমানে আমানের মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৭০০ কোটি টাকা। ২০১৫ সালে আমান “Boat” কোম্পানিটি শুরু করেন। এদিকে, কয়েক বছরের মধ্যেই আমান সেটিকে একটি বড় ব্র্যান্ডে পরিণত করে ফেলেন। বর্তমানে কোম্পানিটি হেডফোন, ইয়ারফোন, ট্রাভেল চার্জার, ব্লুটুথ স্পিকার, স্মার্ট ওয়াচ সহ একাধিক আকর্ষণীয় গ্যাজেট তৈরি করে।

জানা গিয়েছে যে, শুধুমাত্র ২০১৭ সালেই “Boat” কোম্পানির বিক্রি ছিল ২৭ কোটি টাকা, যা ২০১৮ সালে একলাফে বেড়ে হয়েছে ১০৮ কোটি টাকা। তবে, “Boat” আকাশছোঁয়া সফলতা পায় ২০২০ সালে। ওই বছর কোম্পানির মোট বিক্রি পৌঁছে যায় ৫০০ কোটি টাকায়। এদিকে, একজন মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেও আমান যেভাবে তাঁর কোম্পানিকে দেশের প্রতিটি ঘরে পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছেন তা সত্যিই প্রশংসাযোগ্য।

মন্তব্য:

মন্তব্য বন্ধ আছে।

অনুরূপ খবর