মঙ্গলবার, জুলাই ০৫, ২০২২ | ২০ আষাঢ় ১৪২৯

বিজেপিনেতার টুইটকে ‘কারসাজি’ ঘোষণার পরেই টুইটারের অফিসে ‘হানা’ দিল দিল্লি পুলিশ


  • Logo
  • মঙ্গলবার মে ২৫, ২০২১
বিজেপিনেতার টুইটকে ‘কারসাজি’ ঘোষণার পরেই টুইটারের অফিসে ‘হানা’ দিল দিল্লি পুলিশ
743 views

‘কংগ্রেসের টুলকিট’ কাণ্ড নিয়ে বিবাদ শুরু হয়ে গেল কেন্দ্র এবং টুইটার ইন্ডিয়ার মধ্যে। কীসের ভিত্তিতে বিজেপি নেতা সম্বিত পাত্রর টুইটকে ‘কারসাজি’ বা ‘ম্যানিপুলেটেড’ ঘোষণা করল টুইটার, তা জানতেই টুইটার ইন্ডিয়ার দিল্লির দুই অফিসে হানা দিল দিল্লি পুলিশ। সেখানে গিয়েই তাঁদের যুক্তি, বারবার নোটিস দেওয়া সত্ত্বেও টুইটার কর্তৃপক্ষ থেকে কোনও জবাব না আসায় বাধ্য হয়েই তারা অফিসে গিয়েছিলেন।

তবে কী এই কংগ্রেস টুলকিট? এই বিষয়ে বিজেপির অভিযোগ, আসলে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কাকে ব্যবহার করে মোদি সরকারকে বদনাম করার চেষ্টা চালাতে কংগ্রেস ব্যবহার করছে বিতর্কিত টুলকিটকে। দিন কয়েক আগে বিজেপি নেতা সম্বিত পাত্র (Sambit Patra) টুইট করে দাবি করেন, এই সেই ‘টুলকিট’। তিনি রীতিমতো ব্যঙ্গ করে লেখেন, ‘‘বন্ধুরা দেখুন, কংগ্রেসের টুলকিট কীভাবে অতিমারীর সময়ে অভাবীদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে।’’ এমনকি টুলকিটে বলা হয়েছে, করোনার ভারতীয় স্ট্রেন আসলেই ‘মোদি স্ট্রেন’। সেই সঙ্গে মহাকুম্ভকে উল্লেখ করা হবে ‘সুপার স্প্রেডার’ হিসেবে। তবে সম্বিতের পাশাপাশি টুলকিট নিয়ে টুইট করেন বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি, বিজেপি নেতা বিএল সন্তোষ।

কিন্তু বিজেপির এহেন অভিযোগে কংগ্রেস পালটা দাবি করে বলেন, এই ধরনের কোনও টুলকিট তাঁদের তরফে প্রকাশ করা হয়নি বরং বিজেপি ‘ভুয়ো’ টুলকিট ছড়িয়ে তাদের বদনাম করার চেষ্টা করছে। এমনকি সম্বিত পাত্র সহ একাধিক বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করেছে কংগ্রেস। এরপরেই টুইটারের তরফ থেকে সম্বিত পাত্রর টুইটকে ‘ম্যানুপুলেটেড মিডিয়া’ হিসেবে দেগে দেওয়া হয়। তারপরই কেন্দ্রের রোষের মুখে পড়ে টুইটার। কেন বিজেপি মুখপাত্রের টুইটকে ‘কারসাজি’ বলা হয়েছিল, তা জানতে চেয়ে টুইটারকে নোটিস পাঠায় দিল্লি পুলিশ।

দিল্লি পুলিশের দাবি, টুইটারের তরফে তাঁদের পাঠানো নোটিসের জবাব চাইতেই সোমবার বিকেলে দিল্লির লাড়ো সরাই এলাকা এবং হরিয়ানার গুরুগ্রামে টুইটার ইন্ডিয়ার দুই অফিসে হানা দেয় দিল্লি পুলিশ। তাঁদের দাবি, টুইটার যেভাবে বিজেপি নেতার টুইটকে ভুয়ো বলেছেন, তাতে মনে হচ্ছে, এই টুলকিট কাণ্ডে নিশ্চই টুইটার কর্তৃপক্ষের কাছে এমন কোনও তথ্য আছে, যা তাঁদের কাছে নেই। সেই তথ্য জানতেই টুইটার অফিসে গিয়েছিলেন তাঁরা।

মন্তব্য:

মন্তব্য বন্ধ আছে।

অনুরূপ খবর